আজ  সোমবার, ২৪ জুন ২০২৪


পটিয়ার সার্বিক উন্নয়নে নিজেকে সচেষ্ট রাখবো

  আফছার উদ্দিন লিটন ও এলেন ভট্টাচার্য অনিক   |   আপডেট: ০২:৫১ পিএম, ২০২৪-০১-০৬    219

 

পটিয়ার সার্বিক উন্নয়নে নিজেকে সচেষ্ট রাখবো আলহাজ্ব মোতাহোরুল ইসলাম চৌধুরী

আলহাজ্ব মোতাহোরুল ইসলাম চৌধুরী। তিনি একজন বীর মুক্তিযোদ্ধা। পটিয়া উপজেলার সাবেক চেয়ারম্যান। চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি। তিনি পটিয়া উপজেলার সংসদীয় আসনের আওয়ামী লীগ মনোনীত নৌকার প্রার্থী। তাঁর নির্বাচনি এলাকার জনগণ খুশিতে আত্মহারা--মাননীয় প্রধানমন্ত্রী এবার যোগ্য প্রার্থী মনোনীত করেছেন। সাক্ষাৎকার নিয়েছেন সাংবাদিক এ্যালেন ভট্টাচার্য অনিক ও চট্টলার ডাক পত্রিকার সম্পাদক আফছার উদ্দিন লিটন।

এ্যালেন ভট্টাচার্য অনিক : কেমন আছেন আপনি?

আলহাজ্ব মোতাহোরুল ইসলাম চৌধুরী : আমি ভালো আছি।

 

এ্যালেন ভট্টাচার্য অনিক : পটিয়া ব্রিটিশ বিরোধী আন্দোলনের তীর্থস্থান হিসেবে পরিচিত, এই পটিয়াকে আপনি কিভাবে সাজাতে চান ?


আলহাজ্ব মোতাহোরুল ইসলাম চৌধুরী : আমার প্রথম কাজ পটিয়াকে একটি আধুনিক যুগোপযোগী এবং মাদক ও সন্ত্রাসমুক্ত উপজেলা হিসেবে গড়ে তোলা। সরকারের বিভিন্ন প্রকল্পের সমন্বয় করে পটিয়ার উপযোগী করে উন্নয়ন ব্যবস্থাপনা তৈরি করবো। একটি অংশগ্রহণমূলক সমাজ এবং ভৌতিক অবকাঠামো গড়ে তুলতে আমার সর্বোচ্চ শ্রম ও মেধার সমন্বয় ঘটাবো। বর্তমানের তথ্যপ্রযুক্তিকে কাজে লাগিয়ে বেকার এবং কর্মক্ষম জনগোষ্ঠীকে সমাজের মূল স্রোতের সাথে সমন্বয় করতে চেষ্টা করবো। আমার অতীতের অভিজ্ঞতা এবং বর্তমানের শক্তি কাজে লাগিয়ে পটিয়ার সার্বিক উন্নয়নে নিজেকে সচেষ্ট রাখবো ইনশাল্লাহ।


আফছার উদ্দিন লিটন : আপনার নির্বাচনি প্রচারণা কেমন চলছে?

 

আলহাজ্ব মোতাহোরুল ইসলাম চৌধুরী : আমার নির্বাচনি প্রচারণা খুবই ভালো চলছে। পটিয়ার মানুষ স্বতঃস্ফূর্তভাবে আমার নির্বাচনি প্রচারণায় আগ্রহ নিয়ে আসছে। দেখছে। যেখানে যাই মানুষ আমাকে ফুল উপহার দিচ্ছে। আমি আশ্চর্য হই--এখনো বিজয় হয়নি অথচ বিজয় হওয়ার আগে মানুষ আমাকে ফুলের নৌকা উপহার দিচ্ছে; তা আমার খুব ভালো লাগছে। তারা আমাকে পটিয়ার এমপি হিসেবে দেখতে চায়।

 

আফছার উদ্দিন লিটন : আপনি জয়ের ব্যাপারে কতটুকু আশাবাদী?

আলহাজ্ব মোতাহোরুল ইসলাম চৌধুরী : আমি জয়ের ব্যাপারে শতভাগ আশাবাদী। ৭ জানুয়ারিতে পটিয়ার মানুষ আমাকে নৌকা মার্কা ভোট দিয়ে বিপুল বিপুল ভোটে বিজয়ী করবেন।

 

আফছার উদ্দিন লিটন : পটিয়া উপজেলা চেয়ারম্যান হিসেবে আপনি কতটুকু সফল?

আলহাজ্ব মোতাহোরুল ইসলাম চৌধুরী : আমি পটিয়া উপজেলা চেয়ারম্যান হওয়ার পর সাসটেনেবল ডেভেলপমেন্ট গোল (এসডিজি) পূরণের জন্য শতভাগ চেষ্টা করেছি। আমি টেন্ডারের কাজে কোনো কমিশন নিইনি। আমি উপজেলা চেয়ারম্যান থাকাকালীন সময়ে সরকারের উন্নয়নমূলক কাজে কোনো টেন্ডারবাজি, আত্মীয়করণ, দলীয়করণ প্রভাব হতে দেয়নি। সবকিছু নিয়ম অনুযায়ী করেছি।

 

আফছার উদ্দিন লিটন : আপনার নির্বাচনি এলাকায় কোনো ধরনের সহিংসতা এখন হচ্ছে কিনা?

আলহাজ্ব মোতাহোরুল ইসলাম চৌধুরী : আমার নির্বাচনি এলাকায় কোনো ধরনের সহিংসতা, দাঙ্গা, হাঙ্গামা এখন হচ্ছে না। নির্বাচনি প্রচারণা সবাই শান্তিপূর্ণভাবে করছে। স্বতন্ত্র প্রার্থীরা হয়তো নির্বাচনের দিন ষড়যন্ত্র করতে পারে।

 

এ্যালেন ভট্টাচার্য অনিক : পটিয়া একটি হিন্দু অধ্যুষিত এলাকা। এখানে সকল ধর্মের, বর্ণের মানুষের একটা এলাকা। সেখানে আপনি সব ধর্মের সহ অবস্থান নিয়ে সবাইকে সাথে নিয়ে কাজ করবেন কিনা?

আলহাজ্ব মোতাহোরুল ইসলাম চৌধুরী : ধর্মীয় সম্প্রীতির এবং অসাম্প্রদায়িকতার উজ্জ্বল উদাহরণ আমাদের পটিয়া উপজেলা। সকল ধর্মের লোকজনের সহ অবস্থান নিশ্চিত করতে আমার থাকবে অক্লান্ত চেষ্টা।

এ্যালেন ভট্টাচার্য অনিক : আপনি নির্বাচিত হলে অংশগ্রহণমূলক নির্বাচনের ক্ষেত্রে সবাইকে সাথে নিয়ে কাজ করবেন কিনা?

আলহাজ্ব মোতাহোরুল ইসলাম চৌধুরী : সরকারের একজন জনপ্রতিনিধি হয়ে আমি নির্বাচিত হলে সকলস্তরের বিশিষ্ট লোকজনের সমন্বয়ে কাজ করবো। বিশেষ প্রকল্প হাতে নেয়ার পরিকল্পনা রয়েছে। পটিয়াতে আগের এমপি বহু প্রকল্পকে তার নিজের স্বার্থে কাজে লাগিয়ে সেসবের অপমৃত্যু ঘটিয়েছেন। আমি নির্বাচিত হলে সেই জায়গা থেকে উত্তরণের চেষ্টা চালাবো।

আফছার উদ্দিন লিটন : পটিয়া উপজেলার নতুন প্রজন্মের ভোটারদের উদ্দেশ্যে আপনি কী বলবেন?

আলহাজ্ব মোতাহোরুল ইসলাম চৌধুরী : আমি চাই আগামী প্রজন্ম মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় উদ্বুদ্ধ হোক। অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশ সামনের দিকে আরও এগিয়ে যাক। পটিয়া উপজেলায় একটি পূর্ণাঙ্গ পাবলিক লাইব্রেরি এবং সরকারি পাঠাগার করার বিশেষ পরিকল্পনা রয়েছে। এছাড়া পটিয়ার সর্বস্তরের যুবক-যুবতীদের আধুনিক এবং প্রযুক্তিগত শিক্ষায় শিক্ষিত করে গড়ে তোলার জন্যে আধুনিক ইনস্টিটিউট প্রতিষ্ঠা করবো ইনশাল্লাহ।

 

আফছার উদ্দিন লিটন : আপনার নির্বাচনি এলাকায় জনসাধারণের কাছে আপনার কোনো ম্যাসেজ থাকলে তা আমাদের মাধ্যমে জানাতে পারেন---


আলহাজ্ব মোতাহোরুল ইসলাম চৌধুরী : সবশেষে আমি চট্টলার ডাক পত্রিকার মাধ্যমে আমার নির্বাচনি এলাকার জনসাধারণের কাছে উদাত্ত আহবান জানাবো যে, আগামী ৭ জানুয়ারির জাতীয় নির্বাচনে নৌকা মার্কায় ভোট দিয়ে যেন আমাকে তাদের এবং সমাজের সেবা করার সুযোগ দেয়। আমার নির্বাচনি এলাকার জনসাধারণ যেন আমার জন্য দোয়া এবং আশীর্বাদ করেন।

আফছার উদ্দিন লিটন : আমাদেরকে আপনার মূল্যবান সাক্ষাৎকার দেয়ার জন্য ধন্যবাদ।  

আলহাজ্ব মোতাহোরুল ইসলাম চৌধুরী : আপনাদেরকেও অসংখ্য ধন্যবাদ। আমি চট্টলার ডাক পত্রিকার উজ্জ্বল ভবিষৎ কামনা করছি।

#এইউ

 

 

রিলেটেড নিউজ

তরুণ প্রকাশকদের অংশগ্রহণে তিনদিনব্যাপী ‌‌প্রশিক্ষণ কর্মশালার সনদপত্র বিতরণ অনুষ্ঠান সম্পন্ন

চট্টলার ডাক ডেস্ক: তরুণ প্রকাশকদের অংশগ্রহণে তিনদিনব্যাপী ‌‌'সৃজনশীল প্রকাশনা খাত: চ্যালেঞ্জ ও সম্ভাবনা' শীর্�...বিস্তারিত


মুসা (আ.) এর আমলে দীর্ঘদিন বৃষ্টি বন্ধ ছিলো!

মো. ইউছুফ চৌধুরী হযরত মুসা (আ.) এর আমলে দীর্ঘদিন যাবত বৃষ্টি বন্ধ ছিলো। তাঁর উম্মতরা তাঁর কাছে এসে বললো “ হে নবী, আল্�...বিস্তারিত


আল-আমিন হাসপাতাল (প্রা.) লিমিটেড

চট্টলার ডাক ডেস্ক: আল-আমিন হাসপাতাল (প্রা.) লিমিটেড ৮৩০, জাকির হোসেন রোড, একে খান মোড়, উত্তর পাহাড়তলী, চট্টগ্রাম। ...বিস্তারিত


চট্টগ্রামের একে খান মোড়ে রাজমহল রেস্তোরাঁ এন্ড বেকার্সের উদ্বোধন

চট্টলার ডাক ডেস্ক: নগরীর একে খান মোড়ে সুপার রাজমহল রেস্তোরাঁ এন্ড বেকার্সের শুভ উদ্বোধন অনুষ্ঠিত হয়েছ। সোমবার, ২৯ �...বিস্তারিত


আমি মহান মুক্তিযুদ্ধে ২ নং সেক্টরে সক্রিয়ভাবে অংশগ্রহণ করেছি

আফছার উদ্দিন লিটন: অধ্যক্ষ শামসুদ্দিন আহমেদ। ১৯৭১ সালে মহান মুক্তিযুদ্ধে সক্রিয় অংশগ্রহণকারী একজন বীর মুক্তিযোদ্ধ...বিস্তারিত


ডিজিটাল বাংলাদেশের সুফল আমরা পদে পদে টের পাচ্ছি

আফছার উদ্দিন লিটন ও এলেন ভট্টাচার্য অনিক লায়ন একে জাহেদ চৌধুরী। চট্টগ্রামের নাজিরহাট পৌরসভার মেয়র। অত্যন্ত বিনয়ী এবং সাংস্কৃতিকবান্ধব এ�...বিস্তারিত